পারব না কে, না বলো। নিজেকে খুজে বের করো পৃথিবীর সবচেয়ে ধনী ব্যাক্তি দের একজন-- জেফ বেজোস ভয়কে করতে হবে জয় হার না মানার গল্প  গুগল ও ফেজবুকের প্রতিষ্ঠাতা সবচেয়ে বেস্ট মটিভেশনাল স্পিকার-  সন্দীপ মহেশ্বরী

Thursday, February 14, 2019

সব হারিয়ে উঠে দাড়ানোর নামই জীবন




একটা ঈগল বয়েসে ৭০ বছর পযর্ন্ত বাচতে পারে।কিন্তু কোন একটা ঈগলকে এই বয়স পযর্ন্ত পৌছাতে গেলে তাকে নিতে হয় তার জিবনের সব চেয়ে বড় আর সবচেয়ে কঠিন সিদ্ধান্তটি আর তাও অতি অল্প সময়ের মধ্যে।কোন ঈগলের ৪০ বছর বয়স পার  হবার পরপরই তার সবকিছু তাকে ছেড়ে চলে যেতে চাই। 


 তার বড় ফ্লেসিবল নখ  এতটাই দুর্বল হয়ে পড়ে যে সে আর তার নিজের খাবার আহরণের কাজটিও নিজে করতে পারে না।।তার বড় এবং শক্তিশালী ঠোট হয়ে পড়ে দুর্বল। তার সবচেয়ে বিশ্বাস যোগ্য ডানা হয়ে পড়ে তার কাছে ভারী।তার ঘন আর ভারী ডানা তার বুকের সাথে এতটাই এটে  যাই  যে ওড়াটাকেই তার কাছে সবচেয়ে কঠিন করে দেয়।

এখন এই ঈগলের কাছে শুধু মাত্র দুইটা অপশন ই বেচে থাকে।
১. এই ভাবেই ধুকে ধুকে বাচতে থাকো যতক্ষন মৃত্যু তাকে ঘিরে না নেয়।
২. একটা কঠিন আর শক্ত প্রসেস এর মধ্য দিয়ে যাও এবং নিজেকে পরির্বতন করে নাও।

প্রথম টাকে বেছে নেওয়াটা তো তার জন্য খুবই সহজ । তবে নির্জিব প্রাণীর মতো বেচে থাকার মধ্যে কিসের সফলতা।তাই সে বেছে নেয় দ্বীতিয়টা। এই প্রসেস টা এমন যেতাকে উড়ে গিয়ে বসতে হবে সবচেয়ে উটু পাহাড়ের চূড়াতে আর সেখানেই বাস করতে শুরু করতে হবে।তারপর ঈগল তার ঠোটকে আঘাত করতে থাকে পাথরের সাথে ততক্ষন , যতক্ষন তার দুর্বল ঠোট ভেঙে না যাই।এর পর ঈগল অপেক্ষা করে সে দিনের জন্য যেই  দিন পুনরায় তার ঠোট আবার আগের মতো অবস্থায় ফিরে আসবে। 

এই সময়ের মধ্যে কোন ধরনের খাবারের ব্যবস্থা করাও তার পক্ষে সম্ভব হয় না।তার ঠোট পুরোপুরি উঠার পর সে তার ঠোট  দিয়ে তার সব  নখ তুলে ফেলে। যখন তার সব নখ আবার পুনরায় বেড়ে উঠে সে তার ঠোট দিয়ে তার সব পালক তুলে ফেলে। পরির্বতনের আনন্দ। নতুন জিবনের আনন্দ তার সব ব্যাথা থেকে অব্যহতি দিয়ে দেয়।

আর তার পর……………….
ঈগল তার  দ্বীতিয় জীবনের প্রথম উড়ার স্বাদ গ্রহণ করে আর আরো ৩০ বছর নিজের মতো করে বাচতে শুরু করে।আমাদের জীবনেও এই ভাবে হাজারও দুঃখ কষ্ট আসতে শুরু করে।হাজারও ব্যার্থতা আসতে শুরু করে। নিজের জীবনে বেচে থাকার আশাটাই হারিয়ে ফেলি।আমাদেরও উচিত ঈগলের মতো পুণরায় নিজেকে গড়ে তোলা।

”সব সময় মনে রাখবে তোমার প্রথম ব্যার্থতাই তোমার শেষ চেষ্টা নয়। তোমার কাজ নতুন করে  শুরু   করার  কারণ মাত্র।”

0 Comments:

Post a Comment