পারব না কে, না বলো। নিজেকে খুজে বের করো পৃথিবীর সবচেয়ে ধনী ব্যাক্তি দের একজন-- জেফ বেজোস ভয়কে করতে হবে জয় হার না মানার গল্প  গুগল ও ফেজবুকের প্রতিষ্ঠাতা সবচেয়ে বেস্ট মটিভেশনাল স্পিকার-  সন্দীপ মহেশ্বরী

Wednesday, February 13, 2019

পাকিস্থান সম্পর্কে কিছু অজানা তথ্য



পাকিস্তান সরকারীভাবে ইসলামি প্রজাতন্ত্রী পাকিস্তান দক্ষিণ এশিয়ার একটি রাষ্ট্র. 212,742,631 এর অধিক জনসংখ্যা নিয়ে এটি জনসংখ্যার দিক থেকে বিশ্বের ষষ্ঠ বৃহত্তম রাষ্ট্র এবং আয়তনের দিক থেকে ৩৩তম বৃহত্তম রাষ্ট্র। 

ফার্সী উর্দু ভাষায় 'পাকিস্তান' অর্থ- পবিত্র স্থান বা এলাকা। ফার্সী পাশতু শব্দ 'পাক' অর্থ- পবিত্র। আর শব্দাংশ ـستان (-স্তান) একটি তৎসম-ফার্সী শব্দ যার অর্থ স্থান বা এলাকা। চৌধুরী রহমত আলী "নাউ অর নেভার" পুস্তকে নামটির প্রস্তাব দেন।এটি উত্তর-পশ্চিমে আফগানিস্তানের ওয়াখান করিডোরের দ্বারা তাজিকিস্তান থেকে সংকীর্ণভাবে বিভক্ত, এবং ওমানের সাথে সমুদ্রের সীমান্ত ভাগ করে।

ভারতীয় অঞ্চলে ঔপনিবেশিক আমললে দুই ভাগে ভাগ করা হয় যথা . ইংলিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির শাসনামল . ব্রিটিশ সরকারের শাসনামল তবে পাকিস্তান প্রথম থেকেই ইংলিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির শাসনাধীনে যাই নি কারন তখনও এই অঞ্চলে স্বাধীনভাবে রাজারা শাসন করতো তারপর ধীরে ধীরে পাকিস্তান অঞ্চল ব্রিটিশ অধিভুক্ত হয়।

১৯৪৭ সালে ভারতীয় উপমহাদেশ যুক্তরাজ্য থেকে স্বাধীনতা লাভ করার পর ভারতীয় উপমহাদেশ বিভাজনের মাধ্যমে ভারত পাকিস্তান ' দুটি দেশের ন্ম হয়। তারমধ্যে ছিল পশ্চিম পাকিস্তান পূর্ব পাকিস্তান(বর্তমান বাংলাদেশ)পাকিস্তানের সরকারি ভাষা ইংরেজি এবং জাতীয় ভাষা উর্দু। এছাড়াও দেশটিতে পাঞ্জাবি, সিন্ধি, সারাইকি, পাশতু, বেলুচি, ব্রাহুই ইত্যাদি ভাষা প্রচলিত। অনেক ভাষাই ইন্দো-ইউরোপীয় ভাষাপরিবারের বিভিন্ন শাখার অন্তর্গত।পাকিস্তানের জাতীয় পতাকার নকশা প্রণয়ন করেন সৈয়দ আমিরুদ্দিন কেদোয়াই। 

এই নকশাটি অল ইন্ডিয়া মুসলিম লীগের ১৯০৬ সালের পতাকার উপর ভিত্তি করে তৈরি করা হয়। পাকিস্তান স্বাধীনতা লাভ করার দিন আগে ১৯৪৭ সালের ১১ই আগস্ট তারিখে এই পতাকাটির নকশা গৃহীত হয়।  পতাকাটিকে পাকিস্তানে সাব্ হিলালি পারচাম বলা হয়। উর্দু ভাষার এই বাক্যটির অর্থ হলো "নতুন চাঁদ বিশিষ্ট সবুজ পতাকা" এছাড়াও এটাকে "পারচাম--সিতারা আও হিলাল" অর্থাৎ "চাঁদ তারা খচিত পতাকা" বলা হয়ে থাকে।

বর্তমানে একটি অর্ধ-রাষ্ট্রপতিশাসিত যুক্তরাষ্ট্রীয় প্রজাতন্ত্র কাঠামোয় সম্পাদিত হয়, যদিও অতীতে বিভিন্ন সময়ে সংসদীয় রাষ্ট্রপতি শাসিত ব্যবস্থার প্রচলন ছিল। রাষ্ট্রপতি হলেন রাষ্ট্রের প্রধান। সরকারপ্রধান হলেন প্রধানমন্ত্রী। রাষ্ট্রের নির্বাহী ক্ষমতা সরকারের উপর ন্যস্ত। আইন প্রণয়নের ক্ষমতা প্রধানত আইনসভার উপর ন্যস্ত।
দেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী ছিলেন ভারতের অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের অর্থমন্ত্রী লিয়াকত আলি খান  এযাবৎ কোনো প্রধানমন্ত্রী তার কার্যকাল সম্পূর্ণ করতে পারেনি। দীর্ঘ মেয়াদি প্রধানমন্ত্রীরা হলেন বেনজীর ভুট্টো , নওয়াজ শরীফ  ইউসুফ রেজা গিলানি।




0 Comments:

Post a Comment